সমাজের যাতাকলে নিয়মিতভাবে পিষ্ট হতে দেখেছি, সমাজকে উপেক্ষা করে তো আর চলা যায় না। কিন্তু প্রতিনিয়ত কি আমরা নিজেরাই নিজেদের সমস্যাগুলোকে বাড়িয়ে দেই না? সহজ নিয়ম গুলোকে কি আমরা কঠিন বানিয়ে ফেলছি না? একজন প্রতিষ্ঠিত না হলে কি পৃথিবীতে তার দাম নেই? প্রতিষ্ঠিত বলতে কিন্তু প্রতিষ্ঠিত ই বলতে হবে, কারণ সুনির্দিষ্ট নাম, যশ, খ্যাতি, বংশ মর্যাদা থাকতে হবে, আর যেটা থাকতে হবে সুনির্দিষ্ট পেশা, আর এই সুনির্দিষ্ট পেশা বলতে কি বোঝায়?

যেটা সমাজে মেনে নেয়া যায়, যেটার সমাজে মান মর্যাদা আছে, যেটা দুই চার জনকে বলা যায় । আপনি সৎ পথে গায়ে গতর খেটে উপার্জন করবেন, লাভ নেই, সমাজে কি হিসেবে আপনার পরিচয় আছে?

সৎ পথে টাকা উপার্জন করে এটা কোন সুনির্দিষ্ট নাম বুঝায় না, আপনি যেটাই করেন, সুনির্দিষ্ট নাম থাকতে হবে, হোক সেটা ছোট, হোক সেটা বড়, ছোট হোক বড় হোক সেটা না হয় হল, কিন্তু তার সিকিউরিটি থাকতে হবে, সময়ের পর সময় যেন নিজের উপার্জনের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে না হয়। আমরা ব্রান্ড ভ্যালু চাই, আমরা নিজেদের নিরাপত্তা চাই, আমরা যখন নিজেদের নিরাপত্তা নিজেরাই হাতে তুলে নিচ্ছি স্বয়ং সৃষ্টিকর্তা এখানে কি করবেন? সময় গুলো চলে যাচ্ছে, জীবন টা কঠিন হচ্ছে। অনেকে সহ্য করতে পারছে না, নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করছে, জীবনের এত হিসাব মিলানোর চেয়ে ফাইনাল হিসেবের দিকে চলে যাচ্ছে, খবরের কাগজ এ অহরহ আমরা দেখি, আফসোস করি, এতটুকুই। নিন্তু সমাজের এই সুপ্রতিষ্ঠিত নিয়মকে কখনো বুড়ো আংগুল দেখাতে পারছি না, আবার পারছি। অনেকেই অবস্থা গুলোকে বুঝার চেষ্টা করছি, আবার অনেকেই করছি না, কারণ সমাজে আমাদের মান মর্যাদা, প্রতিপত্তি আছে ।Life (American TV series) - Wikipedia

অনেকে এসবের তোয়াক্কা করছি না, জীবনটাকে সহজভাবে বুঝার চেষ্টা করছি, জীবন যখন আছে, আল্লাহ নিয়ে যাবেন। কারণ, যারা গায়ে গতরে খেটে নিজেকে চালানোর চেষ্টা করছে, আল্লাহ তো থামিয়ে দেয় নাই, দিয়েছে? হয়ত তারাই বেশি সুখী আছে, ঝামেলা নেই, দিন আনে দিন খায়, এত হিসাব মেলানোর কিছু নেই । >> আপনার ভাগ্যে যা লেখা আছে তাই হবে, আপনি নিজেই নিজের ভাগ্য তো বদলাতে পারবেন না, তাহলে জীবনটাকে এত বড় জটিল করে লাভ আছে??

আসলে শুধু সমাজ ব্যবস্থার দোষ দিয়ে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে চাইছি না, আমাদের নিয়তি টাই হয়ত এইরকম, একটা ছেলে সম্মান করে এত সহজেই নিজের আখের গুছাতে পারে না, তাহলে সমাজ আপনার কিসের উপর ভরসা করবে? আজকাল আমরা ডাক্তার পেশার কেউ ছাড়া সহজে ভরসা করতে পারি না, কারণ ভরসা করে ধোকা খাওয়ার উদাহরণ ভুড়ি ভুড়ি আছে, একটা ছোট্ট ভুলের জন্য সারাজীবন চোখের পানি ফেলার আগে শতবার চিন্তা করা অনেক ভাল।

কিন্তু আপনি দিনমজুর হলেও আপনার দিন চলে যাবে, আটাকায় থাকবে না, হয়ত নাম নেই, যশ নেই, খ্যাতি নেই, মর্যাদা নেই। কিন্তু দিনমজুরেরা কি দিনশেষে তাদের অবস্থার কখনো পরিবর্তন করে নি? বা করতে পারে নি.? আপনাদের কাছে প্রশ্ন রেখে গেলাম। দিনশেষে সুখের পিছনে না ছুটে আমাদের যা আছে আমরা তার মধ্যেই নিজেদের সুখটুকু বেছে নিতে পারি।

মাসুদ রানা
পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ,
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়