বিয়ের সময় আসলে কি কি হয়? কাজি সাহেব কাবিনের লেখার একটা সারসংক্ষেপ পড়ে শোনান ও মতামত জানতে চান, তারপর কাবিননামায় সাক্ষর ,দোয়া পড়ানো এবং বিবাহ সম্পন্ন। কিন্তু যে কাবিনে সাক্ষরের মাধ্যমে আইনত আপনার জীবন আরেকজনের সাথে জড়িয়ে যাচ্ছে তাতে কি কি লেখা আছে বা আরও কি কি যোগ করা যায় তা পড়ে দেখার কথা কি আমাদের কারও কখনও মনে হয়?

হ্যা একটা ব্যাপার নিয়ে আমাদের মাথা ব্যাথা অনেক বেশি তা হলো দেনমহর। দেনমোহরের দরকষাকষি নিয়ে বিয়ে বাড়িতে ঝামেলা বেধে যাওয়ার ঘটনা যে হয় না তা না।অথচ আরও গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারে আমাদের ভুল হয়ে যায় অজ্ঞতার কারণে বিশেষ করে মেয়েদের তা হলো কাবিনের বিশেষ ২ টি পয়েন্ট ১৭ ও ১৮।সাধারণত কাজিরা এ ২ টি পয়েন্ট কেটে রাখেন। আপনার উচিত পড়ে দেখা ও প্রোয়জনে ব্যবহার করা।

প্রথমে আসি ১৭ নাম্বার পয়েন্টে, কোনো বিশেষ শর্ত আছে কিনা? সবসময় যে বিশেষ শর্ত থাকে বা থাকতেই হবে এমনটা না । কিন্তু অনেক সময় থাকলেও তা ব্যবহার করা হয় না। যেমন , বিয়ের পরেও পড়াশোনা করতে দিতে হবে বা চাকুরি করতে দিতে হবে এমন কথাগুলো মুখেমুখেই ঠিক হয় । বেশির ভাগ সময় হয়ত সমস্যা হয়ও না,কিন্তু সমস্যা যে একদম হয় না তাও না। কিন্তু মুখেমুখে কথা রাখার থেকে সহজেই তা কাবিনে লিখিত রাখা সম্ভব।

আরেকটি হল ১৮ নাম্বার,যেখানে স্ত্রী স্বামীর থেকে তালাক প্রদানের অধিকার নিয়ে রাখতে পারেন। এটা ঠিক যে বিয়ের মাধ্যমে তারা আজীবন একসাথে থাকার অঙ্গিকার করে, তবে পরিবেশ পরিস্থিতিও সবসময় সমান হয় না। একজনের যেহেতু তালাক প্রদানের অধিকার থাকছে অপরজনেরও তা থাকা উচিত এবং কাবিননামার মাধ্যমে তা খুব সহজে করে রাখা যায়।

ইয়াসমিন শিরি 
পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।