asif mehdi

এমনটা শোনা যায়, ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়ারা নাকি ভালো পাঠক হতে পারে না, দিন কাটে ওই রসকষহীন ক্যালকুলাসের ইকুয়েশন সমাধান করে আর ল্যাবের ঘানি টেনে। সাহিত্য বুঝবেই বা কি করে। ভালো লেখক হওয়া তো অনেক দূরের ব্যাপার।

ভূমিকাটা করা অবশ্য এক লেখককে নিয়ে কথা বলার জন্য। তবে তাঁর পড়াশোনা ওই রসকষহীন ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে । রীতিমতো বুয়েট এর ইইই ডিপার্টমেন্ট থেকে স্নাতক শেষ করে পাড়ি জমিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। স্নাতকোত্তর করেছেন University of Sussex থেকে ‘স্ট্র্যাটেজিক ইনোভেশন ম্যানেজমেন্ট’-এর ওপর। তবে থেমে থাকেনি তাঁর সাহিত্য চর্চা। লিখেছেন রস+আলো, উন্মাদ, বিজ্ঞানচিন্তা, কিশোর আলোর মতো ম্যাগাজিনে। এছাড়াও প্রবাসী বাংলা

ম্যাগাজিনগুলোতেও লিখছেন নিয়মিত। এমনকি একসময় সম্পাদনা করেছেন ‘ টাটকা’ ও ‘ হ-য-ব-র-ল’ এর মতো কিছু জনপ্রিয় ম্যাগাজিন। এসবের বাইরে লিখেছেন নাটক। তাঁর লেখা নাটক ‘অ্যানালগ ভালোবাসা’-র বিষয়বস্তুর জীবনঘনিষ্ঠতা দর্শকদের হৃদয় ছুঁয়েছে। ফেসবুকে শেয়ার করা তাঁর কবিতা ও ছড়াগুলোকে তিনি ‘ন্যানো কাব্য’ নাম দিয়েছেন। এজন্য ভক্ত ও অনুরাগীরা তাঁকে ’ন্যানো কবি’ হিসেবে ডাকে।

তিনি নিয়মিত অবদান রেখে চলেছেন বাংলা আধুনিক সাহিত্যের বিভিন্ন অঙ্গনে। মায়া, বধির নিরবধি, অপ্সরা ইত্যাদি তাঁর উল্লেখযোগ্য পাঠক সমাদৃত উপন্যাস। লিখেছেন সাইকো থ্রিলার নিলীন। হিগস প্রলয়, ফ্রিয়ন, ট্রুপিটু-পৃথিবীর মহাবিপদ এগুলো তাঁর রচিত সায়েন্স ফিকশন। এছাড়াও বিজ্ঞানকে মজার ও উপভোগ্য করতে লিখেছেন মহা আবিষ্কারের মজার তথ্য, চোখের তারায় তারার মেলা, সবুজ পাতায় রান্না ইত্যাদি।

‘উন্মাদ’ ও ‘রস+আলোতে’ প্রকাশিত তাঁর ২৭টি রম্যগল্প নিয়ে ২০১২ সালে বইমেলাতে প্রকাশিত হয় প্রথম বই ‘বেতাল রম্য’। তারপর একে একে প্রকাশিত হয় আরও অনেক রচনা। বর্তমানে তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা চব্বিশ।

এবার আর ইঞ্জিনিয়ার বা লেখক আসিফ মেহ্‌দী নয়; কথা বলা যাক ব্যক্তি আসিফ মেহ্‌দীকে নিয়ে। তাঁর পৈতৃক নিবাস ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা থানার বসন্তপুর গ্রামে। যদিও বড় হয়েছেন রাজধানী ঢাকাতে। তাঁর সহধর্মিনী মৌবীণা জ্যাকলিন বারি পেশায় ডাক্তার। এত এত অর্জনের পরেও খুব সাধারণ জীবনে অভ্যস্ত তিনি। অমায়িক ও বিনয়ী আসিফ মেহ্‌দী সবকিছুর বাইরে নিজেকে লেখক হিসেবে পরিচয় দিতেই ভালোবাসেন।

তিনি তাঁর অসামান্য প্রতিভার জন্য অর্জন করেছেন বেশ কিছু একাডেমিক পুরস্কার। মাধ্যমিকে ঢাকা বোর্ডে ১২তম হওয়ায় বি এ এফ শাহীন স্কুল এন্ড কলেজ থেকে পেয়েছেন ‘Best Merit Trophy of Air Force Chief’. উচ্চ মাধ্যমিকে ঢাকা বোর্ডে ১৯তম হওয়ায় নটরডেম কলেজ থেকে পেয়েছেন ‘Award for Excellence’. ২০১৪ সালে ৩৩ তম বিসিএসে অংশগ্রহণ করে বিসিএস তথ্য (প্রকৌশল) ক্যাডারে প্রথম স্থান অর্জন করেন। লেখক সত্তাকে লালন করার পাশাপাশি এখন কর্মরত আছেন বাংলাদেশ বেতারের রিসার্চ এন্ড রিসিভিং সেন্টারে। জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট আয়োজিত তিন মাসব্যাপী কঠোর পেশাগত বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ শেষে লাভ করেছেন ডিজি অ্যাওয়ার্ড (মেধা তালিকায় ১ম)। তাঁর মতো একজন অত্যন্ত মেধাবী ও পরিশ্রমীর কাছ থেকে অনেক কিছু পাওয়ার আছে আামাদের। তিনিও প্রতিনিয়ত তাঁর অবদান রেখে চলেছেন আধুনিক সাহিত্যে এবং বিজ্ঞান চর্চায়।

একজন ন্যানো কবি আসিফ মেহেদীর পক্ষ থেকে তার ভক্ত ও অনুরাগীদের জন্য ন্যানো কাব্যের ছন্দে ছোট্ট একটি বার্তা,

বাড়তি কোনো শর্ত নয়,

জীবন হোক সত্যময়।

দৃপ্ত শপথে,

চলুন বাংলার পথে। 

বিজয় আসুক জীবনভর,

শুভকামনা নিরন্তর।

ইয়াসমিন শিরি 
পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

1 COMMENT

  1. সুন্দর ও গোছানো লেখা…।
    কৃতজ্ঞতা জানবেন।

    আমাদের প্রিয় ন্যানো কবি’র আরেকটি গুণ হলো তিনি অসাধারণ উপস্থাপকও বটে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here