খুব সাধারণ এক গল্প।যেখানে আছে কোনো এক নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের মেধাবী ছেলে যার দিকে তাকিয়ে আছে তার পরিবার । হয়ত এমন পরিস্থিতিই তাকে কিছুটা আলাদা করে তুলেছে। আবেগের প্রকাশ আর সবার মত না।কখনও হারাতে হয় খুব প্রিয় কাওকে।তবুও জীবন চলতে থাকে।

আছে সফল কোনো উচ্চবিত্ত পরিবার। যেখানে বহ্যিক সুখ সফলতার পরেও ভেতরটা অন্যরকম। চারদিক সামলানোর পরেও যেখানে সবকিছুই এলোমেলো থেকে যায়। সমান্তরালে এগোনোর কথা হলেও কখনও গল্পগুলো একসাথে মিলে যায়।

কিন্তু খুব সাধারণ কিছু নিরাবেগী মানুষের গল্পের মধ্যেই কোথাও অন্যরকম একটা অাবেগ নিয়ে আসতে পেরেছেন লেখক। তাদের প্রকাশ না করা আবেগটাই স্পর্শ করেছে অনেক বেশি। সাধারণের মধ্যেই যেনো কিছু একটা ছিল অসাধারণ।

“আজকাল সবাই হিসেব করে বাঁচে। হিসাব করে হাসে, কাঁদে। খরচ তো হিসেব করেই করতে হয়।এমনকি প্রেমটাও।প্রেমে পড়ার আগেই দেখে নেয় প্রেমিক/প্রেমিকার অর্থনৈতিক অবস্থা, পারিবারিক অবস্থা আর কিছু নাহলেও মেধা।হয়তো তাই মানুষ বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মত জীবন যাপন করে আজকাল।”

বইয়ের লাইনগুলি হাতের মুঠোই চলে আসা বর্তমান সময়কেই যেনো উপস্থাপন করেছে।যেখানে সবার ভিড়েও একা বাঁচতে হয়।

জীবন অাধেকলীন মোস্তাফিজুর রহমান টিটু, চৈতন্য প্রকাশনী।

ইয়াসমিন শিরি 
পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।